গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের বর্তমান চাহিদা এবং ভবিষ্যৎ

গ্রাফিক্স ডিজাইন হল একটি আর্ট বা শিল্প।এখানে একজন শিল্পী কম্পিউটার সফ্টওয়্যার এর মাধ্যমে কল্পনা, তথ্য এবং গ্রাহকদের ধারণাগুলির সাথে যোগাযোগ করার জন্য, দৃশ্যমান ধারণা তৈরি করে।গ্রাফিক্স শব্দটি জার্মান শব্দ থেকে এসেছে।এক কথায় চিত্র দ্বারা নকশা তৈরি করাকে বুঝায় গ্রাফিক্স ডিজাইন বলা হয়।

প্রথমত গ্রাফিক্স ডিজাইনটা ভাগে বিভক্ত 


১।স্টিল ইমেজ গ্রাফিক্স

২।মোশান গ্রাফিক্স


স্টিল ইমেজ গ্রাফিক্স আবার মুলতরকম


১।রাস্টার ইমেজ(পিক্সেল বেসিস)

২।ভেক্টর ইমেজ(পিক্সেল ইন্ডিপেন্ডেন্ট)

৩।টাইপোগ্রাফি(২রকমের হয়ে থাকে)


মোশান গ্রাফিক্স প্রধানতপ্রকার


১।এনিমেশান গ্রাফিক্স

২।ভিডিও গ্রাফিক্স


অনেকেই এনিমেশানকে গ্রাফিক্সের অন্তর্ভুক্ত মনে করেন নাহ।কারন এনিমেশান হছে Create something from nothing অন্যদিকে গ্রাফিক্সের জন্যে কিছু না কিছু স্টক লাগেই।তবে বর্তমানে এনিমেশান বা ভিডিও গ্রাফিক্স এটাকেও গ্রাফিক্সের অন্তর্ভুক্ত ধরা হচ্ছে।এটা মুলত ২ ধরনের হয় 2D আর 3D।বর্তমানে 3D এনিমেশানের চাহিদা দিন দিন বাড়ছে।ভিডিও গ্রাফিক্স নিয়ে অনেক কিছুই করা যায়।মুলত টিভির বিজ্ঞাপনের কাজ করাই এর প্রধান কাজ।এর মধ্যেই আছে ইনফো গ্রাফিক্স আর আর সিনেমাটোগ্রাফি।


২০২০ সালে এসে গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখা আপনার জন্যে কেমন হবে ?


অনেকের মনে প্রশ্ন জাগে ২০২০ সালে এসে কি আমার গ্রাফিক্স ডিজাইন কোর্স করা উচিত হবে? সবাই এখন ওয়েব ডিজাইন,ওয়েব ডেভোলপমেন্ট,ডিজিটাল মার্কেটিং শিখছে আমি এখন তাইলে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখে কি করব ? আপনি কি জানেন গ্রাফিক্স ডিজাইনের মার্কেটা ৪৫ বিলিয়ন ডলারে মার্কেট।প্রতিদিন যত গুলো ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠছে তাদের সবার একটি করে গ্রাফিক্স ডিজাইনার প্রয়োজন হচ্ছে।করোনার বা কোভিড-১৯ কারণে সব গুলো প্রতিষ্ঠান তাদের ব্যবসা অনলাইনের আওতায় নিয়ে এসেছে এর ফলে সবার এখন তাদের ব্যবসার জন্যে লোগো,পোষ্টার,ব্যানার,ডিজিটাল মেনু কার্ড প্রয়োজন হচ্ছে আর এই সবই কিন্তু গ্রাফিক্স ডিজাইনের অন্তরগত।তাই বুঝায় যাচ্ছে যত দিন নতুন নতুন ব্যবসা শুরু হবে তত দিন গ্রাফিক্স ডিজাইনের চাহিদা বাড়তেই থাকবে।

গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের বর্তমান চাহিদা এবং ভবিষ্যৎ

গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের বর্তমান চাহিদা এবং ভবিষ্যৎ কেমন ?

 


উপরের কলাম থেকে আমরা একটু হলেও অনুমান করতে পেরেছি গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের বর্তমান চাহিদা কেমন এবং ভবিষ্যৎ তা কেমন থাকবে।এই বিয়ষে বিস্তারিত বলার আগে আপনাকে শুধু একটি জিনিস লক্ষ করতে বলব সেটা হল গত কয়েক বছরে আমাদের দেশে আইটি উদ্যোক্তার সংখ্যা।বিগত কয়েক বছরে আমাদের দেশে প্রায় কয়েক হাজার আইটি উদ্যোক্তা তৈরী হয়েছে এর ভিতর অনেকেই ছিল গ্রাফিক্স ডিজাইনার।অনেক তরূণই গ্রাফিক্স ডিজাইনার হওয়ার পর নিজের এজেন্সি দাঁড় করিয়ে সেবা দিয়ে যাচ্ছে ।যত নতুন নতুন ব্যবসা গড়ে উঠছে তত গ্রাফিক্স ডিজাইনাদের প্রয়োজন বেড়ে যাচ্ছে। ভবিষ্যৎ এ গ্রাফিক্স ডিজাইনারের চাহিদা কয়েকগুন বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করছেন এই খাতে উদ্যোক্তারা।


কত টাকা আয় করতে পারবেন একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার হিসেবে ?


একদম শুরুতে একজন স্কিলফুল গ্রাফিক্স ডিজাইনার অনায়াসে দেশীয় কোম্পানি থেকে মাসে ১০-২০ হাজার টাকা আয় করতে পারে।অভিজ্ঞতা ভেদে আয়ের ভিন্নতা আসে যেমন একজন অভিজ্ঞ গ্রাফিক্স ডিজাইনার মাসে ৫০ হাজার থেকে ১ লক্ষ টাকা অনায়াসে আয় করতে পারে।অনেকে দীর্ঘ কাজ করার পর নিজের এজেন্সি শুরু করে তখন সে একই সাথে দেশি এবং বিদেশী ক্লাইন্টদের সাথে কাজ করে মাসে ৭-৮ লক্ষ টাকা আয় করতে পারে।


গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখে ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে আয় 


গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখে আপনি খুব সহজেই ইন্টারন্যাশাল মার্কেটপ্লেস গুলো কাজ করে নিজের আয়ের আরেকটা উৎস তৈরী করতে পারবেন।বাংলাদেশ থেকে অনেকেই এখন ইন্টারন্যাশাল মার্কেটপ্লেসে খুব ভালো করছে ।ইন্টারন্যাশাল মার্কেটপ্লেস গুলো আয় ডলারে হওয়ায় আপনার আয় অনেক বেশী হয়ে থাকে।তবে ইন্টারন্যাশাল মার্কেটপ্লেস গুলোতে কাজ করার জন্যে আপনার ইংলিশ স্কিল ভালো হতে হবে এবং সেই সাথে একজন দক্ষ গ্রাফিক্স ডিজাইন হতে হবে।ইন্টারন্যাশাল মার্কেটপ্লেস গুলোর মধ্যে অন্যতম হল ঃ Fiverr,Upwork.Freelancer99 Designs, Dribbble, Behance, Envato Studio ইত্যাদি।

All Posts
×

Almost done…

We just sent you an email. Please click the link in the email to confirm your subscription!

OKSubscriptions powered by Strikingly